1. admin@dailytolper.com : admin :
নোটিশ:
দৈনিক তোলপাড় পত্রিকা থেকে আপনাকে স্বাগতম। তোলপাড় পত্রিকা আপনার আমার সবার। আপনার এলাকার উন্নয়নের ভূমিকা হিসেবে পত্রিকাটির মাধ্যমে আমরা দায়িত্ব নিয়েছি।   এ জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা-বিভাগ-কলেজ ক্যাম্পাসসহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় সাংবাদিক নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পত্রিকাটির পর্ষদ।  আগ্রহী হলে আপনিও এক কপি রঙিন ছবিসহ নিম্ন ঠিকানায় সিভি প্রেরণ করে নিয়োমিত সংবাদ পাঠাতে পারেন।   প্রচারে প্রসার, আপনার প্রতিষ্ঠান সারা বিশ্বে প্রচারেরর জন্য বিনামূল্যে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।   বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য যোগাযোগ করুন-০১৭১৯০২৬৭০০, prohaladsaikot@gmail.com

প্রেমের বিয়ে, বিষপানে প্রেমিকের আত্মহত্যা

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৫ জুলাই, ২০২৩
  • ৬২ টাইম ভিউ

Visits: 2

সংবাদদাতা,ফরিদপুর:

রাতের বেলায় প্রেমিকার সাথে দেখা করতে গিয়ে বাড়ির পাশে এলাকাবাসীর হাতে ধরা পড়ে প্রেমিক। স্থানীয় প্রভাবশালীরা তাদের দুজনকে বিয়ে দিয়ে দেন। এ ঘটনায় লোকলজ্জা ও অভিমানে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন এক তরুণ।

অভিযোগ উঠেছে, সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই মেয়েটির সাথে বাড়ির পাশে দেখা করতে গিয়ে আটক হওয়ার পর স্থানীয় প্রভাবশালীরা তাদের বিয়ে দেন। এর দুই ঘণ্টা পরই বিষপান করে ছেলেটি। শুক্রবার দিবাগত রাতে ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ওই তরুণের নাম সাগর (২২)। তিনি জেলার মধুখালী উপজেলার মেগচামী ইউনিয়নের চরবামুন্দি গ্রামের কাশেম মোল্যার ছেলে। সাগর কৃষিকাজ করতেন। তার মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, স্থানীয় ইউনিয়নের সংরক্ষিত ইউপি সদস্যের সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া ১৩ বছরের মেয়ের সাথে প্রায় একবছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল সাগরের। মাঝেমধ্যে তারা গোপনে মিলিত হতো। গত বৃহস্পতিবার রাতে তারা দু’জন একান্তে দেখা করার সময় স্থানীয়রা তাদের ধরে ফেলে। খবর পেয়ে উভয় পরিবারের অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্যরা সেখানে হাজির হন। এরপর বিচার-সালিশ শেষে গভীর রাতে ধর্মীয় মতে সাগরের সাথে তার নাবালিকা প্রেমিকের বিয়ে দেয়া হয় এবং সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে রাত ৩ টার দিকে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা রওশন মিয়া (৬৫) বলেন, রাতে সাগর ও মেয়েটি ধরা পড়ার পরে চেয়ারম্যান ও অভিভাবকেরা মিলে তাদের বিয়ে দেয়। তখন সাগর বলেন, ‘তোমরা জোর করে আমার বিয়ে দিতেছো, সকালে কিন্তু আর আমারে পাবা নানে’। তখন ছেলের বাবা কাশেম বলেন, ‘আগে বিয়ে তো হোক, তারপরে দেখা যাবে নে।’

সাগরের বাবা কাশেম মোল্লা বলেন, আমি রাতে ঘুমানোর আগে আমাদের ইউপি চেয়ারম্যানের ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি আমার ছেলের হাত-পা বাঁধা। শুনতে পেলাম আমার ছেলেকে এক মেয়ের সাথে ধরে বেঁধে রেখেছে। আমি তখন চেয়ারম্যান ও স্থানীয় বাদশা খানকে বলি, আপনারা দশজনে যেটা ভালো মনে করেন সেটাই করেন। আমার কোনো আপত্তি নাই।

এ ব্যাপারে জানতে মেয়েটির বাবা মুন্নাফ শেখ ও তার স্ত্রী আর্জিনা বেগমের বক্তব্য জানার জন্য একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

তবে সাগরের মৃত্যুর পর বিষয়টি ধামাচাপা দিতে নানাভাবে চেষ্টা চালানো হয়। আর সাগরের সাথে নাবালিকার বাল্য বিয়ের কথাও বেমালুম চেপে যায় সকলে।

এ ব্যাপারে মেগচামী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাবির উদ্দিন শেখ বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে সাগর আত্মহত্যা করেছে বলে জেনেছি। তবে নিহত সাগরের সাথে কারো প্রেম-বিয়ের বিষয়টি সম্মন্ধে কিছু জানি না। আমি কোনো সালিশ দরবারও করিনি।

এ ব্যাপারে মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, সাগরের মৃতদেহ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেমের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। যতটুকু জানতে পেরেছি সাগর নামের ওই ছেলেটির সাথে ওই ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য একজন ভাইস চেয়ারম্যানের মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এর জের ধরে সে আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। তবে কোনো অভিযোগ পাইনি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2017 তোলপাড়
Customized BY NewsTheme